বিবাহ সারপ্রাইজ (Bibaho surprise) | Shreya Paul

আমি আর আমার মা কে নিয়েই আমার পরিবার। বাবা বিগত ৭ বছর হলো হৃদ রোগে মারা যান, তখন আমি ২১। সংসারের দায়িত্ব আমার ঘাড়ে এসে পরে। মা এর ও অনেক বয়স হয়েছেবিয়ে কর বিয়ে কর বলে আমার মাথা খেয়ে এক শেষ।মায়ের কথা রেখে আমিও মেয়ে দেখার অনুমতি দিলাম মাকে।৭ দিনের মাথায় একটি মেয়ের খোঁজ আসে বাড়িতে। মায়ের খুব পছন্দ হয়েছে তাই  মেয়েটি কে আমি না দেখেই রাজি হয়ে যায়।  আমি আর সাতে পাঁচ এ আর গেলাম না। আমি ব্যাংক এ চাকরি করি। সেখান থেকে আমি এক – দুই মাস এর ছুটি নেই। বিয়ের সব কাজ আমাকেই করতে হবে।

একদিন বিকেলের দিকে আমি আর আমার বন্ধু সমরেশ দুইজনে বিয়ের কেনাকাটা করতে গিয়েছিলাম। হঠাৎ সমরেশ এর এক বান্ধবীর সাথে দেখা হয়। সমরেশ তার সাথে আলাপ করিয়ে দেয়। নাম মৌসুমী। সেই দিন তারা স্কুল জীবন আর দৈনদিন জীবন নিয়ে কথোপকথন করে । কিছু ক্ষণের জন্য আমার মৌসুমী কে ভালো লেগে যায়। কিন্তু আমার তো কিছু দিন পর বিয়ে। তাই বেশি না ভেবে চলে যাই।

রাতে ঘুমনোর সময় আমার শুধু মৌসুমীর কথা মনে পড়ে যাচ্ছে। কিন্তু নিজেকে আমি এইসব থেকে বিরত রাখলাম।

পরের দিন বিকেল ৫.০০ টা নাগাদ সমরেশ  এর ফোন

  • – কিরে রুদ্র  বেরোবি আজকে?
  • – হুম ! বেরণই যায়, আচ্ছা ৬ টায় বেরোই।
  • – ঠিক আছে।

মাকে চা করতে বলে বাইরে গিয়ে একটা আধখানা সিগারেট খেয়ে চা খেয়ে বেরলাম।সমরেশ বাইক নিয়ে অপেক্ষা করছিল মোর মাথায়।বাইকে চেপে রওনা হলাম। হঠাৎ সমরেশ বলল -হ্যারে বিয়ে করছিস বৌ এর ছবি কই দেখালি?

  • – আরে ভাই আমি নিজেই দেখিনি।
  • – মানে!? বিয়ে করবি যাকে তাকেই দেখিসনি?
  • – মেয়ে তো শুনেছি ভালো মায়ের ও খুব পছন্দ। মায়ের পছন্দই আমার পছন্দ।
  • – পরে যদি তোর ভালো না লাগে কি করবি?
  • – আমি তো সারাদিন অফিস এর কাজে ব্যাস্ত থাকব। ও তহ মা এর সাথে দিন কাটাবে । মা এর ভালো লাগলেই হবে।- আচ্ছা যা ভালো বুঝিস।

৩ সপ্তাহ পর,বিয়ের দিন আমার। বাড়ী ভর্তি লোক জন , আত্মীয়দের ভিড় । বন্ধু বান্ধবরা সবাই চলে এসেছে। মা এক গ্লাস দুধ খাইয়ে বলে – ‘ যা বাবা লক্ষ্মী কে ঘরে নিয়ে আয় তাড়াতাড়ি।আজ বাবা কে খুব মনে পড়ছে। হঠাৎ সমরেশ কানে কানে বলে  – কিরে ভয় করছে বুঝি?- হুর পাগল কি যে বলিস না। 

বরণ্ডানলা নিয়ে মেয়ের মা বরণ করে নিল।সময় হলো শুভ দৃষ্টি।

” রুদ্র এই রুদ্র!”  হঠাৎ সমরেশ ডাক।

  • – হ্যাঁ বল কি হলো?
  • – কি হলো? দেখ কি হয়েছে। তোর মা কাকে পছন্দ করেছে।
  • – কেন রে ভলো না?
  • – আরে দেখিনা একবার ।

সমরেশ এর কথায় খুব ঘাবড়ে গেলাম, কে আছে এমন?!শুভ দৃষ্টির সময় আমি চোখ বন্ধ করে নিলাম। ওই পান পাতাটা সরায় যখন তখনও আমি চোখ খুলিনি।পেছন থেকে ” এই রূর্দ্র কি হলো চোখটা খুলবি না নাকি?সমরেশ বলল।মন কে স্থির করে চোখ খুলে দেখি মৌসুমী।ক্ষণিকের জন্য আমি আমার মুখের ভাষা হারিয়ে ফেলেছিলাম। এটা কি হলো? 

যথা রীতি বিবাহ সম্পন্ন হয়ে যায়।অবশেষে সমরেশ আমাকে বলে -“সেদিন মৌসুমী আমাকে বলেছিল তোর সাথে দেখা করার কথা কারণ ও তোকে বিয়ে করার আগে দেখতে চেয়েছিল কিন্তু মৌসুমীর মা আপত্তি করেছিল।

তখন আমি লজ্জা না করে মনের কথাটা বলেই বসলাম- “আর একটা কথা কি জানিস সমরেশ সেদিন মৌসুমিকে দেখে আমার খুব পছন্দ হয়ে ছিল কিন্তু আমার বিবাহ ঠিক করা হয়েছিল তাই আমি সেটিকে ভুলে থেকে ছিলাম।- তাহলে রুদ্র তোর স্বপ্ন টা তাহলে পূরণ হয়ে গেল । তাহলে বল কেমন লাগলো আমার বিবাহ সারপ্রাইজটা!।

-Shreya Paul

5 2 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
4 Comments
Oldest
Newest Most Voted
Inline Feedbacks
View all comments
Simran
Simran
5 months ago

Bah khub vlo laglo pore

TUSHAR
TUSHAR
5 months ago

Wow…..amezing

Prabir sarkar
Prabir sarkar
5 months ago

Outstanding!

Anangsha Choudhury
Anangsha Choudhury
5 months ago

সত্যিই খুব সুন্দর ❤️